আইন ও অপরাধ মেডিয়েশন সোসাইটির প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধন

  • -

আইন ও অপরাধ মেডিয়েশন সোসাইটির প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধন

Category : News

বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল মেডিয়েশন সোসাইটির দ্বিতীয় ধাপের বিশেষ প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন হয়েছে।

শুক্রবার রাজধানীর একটি হোটেলে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান এ প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ড. মিজানুর রহমান বলেন, মেডিয়েশনের মাধ্যমে কোনো বিরোধ মিমাংসা হলে  এই পদ্ধতিতে সবাই একত্রে বিজয়ী হয় বা পরাজিত হয়। কিন্তু মামলায় একপক্ষ জিতে অন্যপক্ষ হারে। মামলায় যুক্তিতর্ক দিয়ে আইনজীবী বক্তব্য উপস্থাপন করে। অন্যদিকে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতিতে (এডিআর) সবাই মন খুলে কথা বলতে পারে।

মিজানুর রহমান বলেন, মামলায় শুধু আমি ব্যবহার হয়। মেডিয়েশনে ব্যবহার আমরা। অর্থাৎ পুরো একটি কমিউনিটি। এখানে সোশ্যাল হারমনি থাকে। এমনকি শেষ পর্যন্ত ক্ষমাও পায়। কিন্তু মামলায় শাস্তিও হতে পারে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করে আপিলের সুযোগ থাকে। কিন্তু মেডিয়েশনে আপিলের সুযোগ নেই। সবাই এটা মেনে নেয়।

এছাড়া মামলায় সবকিছু ইংরেজিতে। এমনকি সব কিছু লিখিত। দলিলভিত্তিক। কিন্তু মেডিয়েশনে নিজস্ব ভাষায় সবকিছু হয়ে থাকে। মৌখিকভাবে সবকিছু হয় বলে উল্লেখ করেন ড. মিজানুর রহমান।

বক্তব্যের সময় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের তিন শিক্ষার্থীদের দিয়ে একটি নাটিকার মাধ্যমে একটি কমলা নিয়ে একটি পারিবারিক বিরোধ মেডিয়েশনের মাধ্যমে নিষ্পত্তিও করে দেখান।

মেডিয়েশন সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা ও সার্টিফায়েড মেডিয়েটর (আইআইএএম) অ্যাডভোকেট সমরেন্দ্র নাথ গোস্বামী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

‘ইন্ট্রোডাকশন টু ইন্টারন্যাশনাল আরবিট্রেশন অ্যান্ড মেডিয়েশন’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী কর্মশালায় প্রশিক্ষক হিসেবে আছেন চাটার্ড ইনস্টিটিউট অব আরবিট্রেটর্স (ইউকে)’র কোর্স ডিরেক্টর মি. ইনবাভিজান, আন্তর্জাতিক মেডিয়েটর কে এস শর্মা ও  অ্যাক্রিডিটেড মেডিয়েটর ইরাম মজিদ। সুপ্রিম কোর্ট ও দেশের বিভিন্ন বার থেকে ২০ জন ডেলিগেট এই কর্মশালায় অংশ নিচ্ছেন।